পশ্চিমবঙ্গ হয়ে দেশের দিকে ধেয়ে আসছে ঘূর্ণিঝড় ফণী | ভারত সহ বাংলাদেশে এই পর্যন্ত ৮ জনের মৃত্যু

পশ্চিমবঙ্গ হয়ে দেশের দিকে ধেয়ে আসছে ঘূর্ণিঝড় ফণী

পশ্চিমবঙ্গ পার হয়ে , সন্ধ্যা নাগাদ খুলনা ও দেশের দক্ষিণ - পশ্চিমাঞ্চল অতিক্রম করছে ঘূর্ণিঝড় ফণী । এসময় বাতাসের গতিবেগ ঘণ্টায় ৮০ থেকে ১২০ কিলােমিটার হতে পারে বলে ধারণা করছে আবহাওয়া অফিস । ঝড়ের কারণে মােংলা ও পায়রা সমুদ্রবন্দরে ৭ নম্বর ও চট্টগ্রামে ৬ নম্বর বিপদ সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে । সারাদেশে বন্ধ রয়েছে নৌযান চলাচল । ঝড়ের প্রভাবে , কাল সারাদেশে বৃষ্টির পূর্বাভাসও দিয়েছে আবহাওয়া অফিস ।রংপুর ও রাজশাহীতে সব চেয়ে বেশি বৃষ্টির আশংকা করা হচ্ছে।


ঘূর্ণিঝড় ফনী মোকাবেলায় উপকূলীয় জেলাসহ সারাদেশেই ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়েছে প্রশাসন। প্রস্তুত রাখা হয়েছে চাল, নগদ টাকা, ঢেউটিন ও শুকনো খাবার। আশ্রয়কেন্দ্রগুলোতে মানুষ আশ্রয় নেয়া শুরু করেছে। এদিকে, প্রবল জোয়ারে বেড়িবাঁধ ভেঙে পটুয়াখালী সদর, মির্জাগঞ্জ ও রাঙ্গাবালী উপজেলার বিস্তীর্ণ এলাকা প্লাবিত হয়েছে।

ঘূর্ণিঝড় ফণীর প্রভাবে সারাদেশে ঝড়োবৃষ্টি হচ্ছে। এর মধ্যে কিশোরগঞ্জে বজ্রপাতে চারজন এবং বাগেরহাটে ঝড়ে একজনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে।

শুক্রবার দুপুরের দিকে কিশোরগঞ্জের ইটনা, মিঠামইন ও পাকুন্দিয়া উপজেলায় ব্রজপাতে চারজনের মৃত্যুর ঘটনা ঘটে। আর বাগেরহাটের সদর উপজেলায় গাছের ঢাল ভেঙে পড়ে এক নারীর মৃত্যু হয়।

এছারা ও ঘূর্ণিঝড় ফণীর তাণ্ডবে ভারতের ওড়িশা রাজ্যে তিনজন নিহত হয়েছেন। শুক্রবার সকালে ফণীর আঘাতে ওড়িশার অনেক এলাকার গাছ উপরে যায় এবং বিদ্যুতের খুঁটি ভেঙে পড়ে বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভির এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানানো হয়েছে।

অন্যদিকে পর্যাপ্ত প্রস্তুতি থাকায় ফণীর আঘাতে কোনো প্রাণহানির আশঙ্কা নেই বলে জানিয়েছেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী ডা. এনামুর রহমান।


Post a Comment

0 Comments