কোরবানি অর্থ কি | ইব্রাহিম আঃ এর কোরবানির ইতিহাস

কোরবানি অর্থ কি | ইব্রাহিম আঃ এর কোরবানির ইতিহাস

কোরবানি অর্থ কি | ইব্রাহিম আঃ এর কোরবানির ইতিহাস

আসসালামু আলাইকুম সম্মানিত পাঠকবৃন্দ সবাইকে আমাদের ওয়েবসাইটে স্বাগতম। প্রিয় পাঠক আসা করি সবাই আল্লাহর রহমতে ভালো আছেন। বন্ধুরা বর্তমান সময়ে আমরা যে কোন তথ্যের জন্য গুগলে সার্চ করে থাকি। তাই ভিবিন্ন ধরনের পিক ডাউনলোড করতে আমাদের গুগলের সাহায্য নিতে হয়।


প্রিয় পাঠক আজকে আমরা আপনাদের জন্য নিয়ে এসেছি কোরবানি অর্থ কি - ইব্রাহিম আঃ এর কোরবানির ইতিহাস। আপনি এই সমস্ত ছবি হোয়াটসঅ্যাপ, ইনস্টাগ্রাম বা অন্য কোন সোশ্যাল মিডিয়াতে ব্যবহার করতে পারেন।  আমাদের সংগ্রহে আছে কোরবানি সম্পর্কে কিছু বানী। আমি আশা করি এই ছবিগুলো আপনার প্রোফাইল পিকচার হিসেবে ব্যবহার করতে কাজে লাগবে। তাই দেরি না করে ডাউনলোড করুন আপনার পছন্দের ছবি।

কোরবানি অর্থ কি

কোরবানি শব্দের অর্থ, ত্যাগ, উৎসর্গ, বিসর্জন। কোরবানি মহান আল্লাহর পক্ষ থেকে বিশ্ব মুসলিমদের জন্য একটি মহৎ ইবাদত। আল্লাহর নৈকট্য অর্জনের উদ্দেশ্য আত্মোৎসর্গ করাই কোরবানি। শরিয়তের পরিভাষায় মহান আল্লাহর নৈকট্য লাভের উদ্দেশ্য, নির্দিষ্ট দিনে, নির্দিষ্ট সময়ে, নির্দিষ্ট ব্যক্তির পক্ষ থেকে নির্দিষ্ট পশু জবেহ করাকে কোরবানি বলা হয়।

ইব্রাহিম আঃ এর কোরবানির ইতিহাস

ইবরাহীম আ.-এর কুরবানী ৷ আমরা জানি কুরবানী শুরু ও সূচনা হযরত আদম আ.-এর দুই পুত্র হাবিল কাবিল থেকেই হয়েছিল। কিন্তু আমাদের এ কুরবানীর সম্পর্ক হযরত ইবরাহীম আ.-এর পুত্র কুরবানীর অবিস্মরণীয় ঘটনার সাথে। আর সে ঘটনার স্মারক হিসেবেই উম্মতে মুহাম্মাদীর উপর কুরবানী ওয়াজিব করা হয়েছে। হযরত ইবরাহীম আ.-এর সে ঘটনা পৃথিবীর ইতিহাসে এক নজিরবিহীন, অবিস্মরণীয় ও শিক্ষণীয় ঘটনা। কুরবানীর তাৎপর্য ও উদ্দেশ্য বুঝবার জন্য এ ঘটনাই হলো একমাত্র কেন্দ্রবিন্দু।


হযরত ইবরাহীম আ. জীবনের প্রায় পুরোটই কাটিয়ে দেন নিঃসন্তান অবস্থায়। অবশেষে তার বয়স যখন ৮৬ বছর তখন একদিন তিনি আল্লাহ তাআলার কাছে দুআ করলেন-

رَبِّ ہَبۡ لِیۡ مِنَ الصّٰلِحِیۡنَ

“পরওয়ার দেগার! আমাকে সৎ পুত্র সন্তান দান কর।”


তার এ দুআ কবুল হয় এবং আল্লাহ তাআলা তাকে একটি পুত্র সন্তানের সুসংব দেন। ইরশাদ হচ্ছে-

فَبَشَّرۡنٰہُ بِغُلٰمٍ حَلِیۡمٍ

‘অতঃপর আমি তাকে এক সহনশীল পুত্রের সুসংবাদ দিলাম ৷

সহনশীল বলে এদিকে ইঙ্গিত করা হয়েছে যে, এ নবজাত তার জীবনে সবর, ধৈর্য ও সহনশীলতার এমন পরাকাষ্ঠা প্রদর্শন করবে যার দৃষ্টান্ত দুনিয়ার কেউ কোনদিন পেশ করতে পারবে না।

ইসমা’ঈল (আ:) এর জন্ম গ্রহন: হযরত ইবরাহীম আ.-এর স্ত্রী হযরত সারা যখন দেখলেন যে, তার গর্ভে কোন সন্তান হচ্ছে না, তখন তিনি নিজেকে বন্ধ্যাই মনে করলেন। এদিকে মিশরের সম্রাট ফিরআউন তার কন্যা হাজেরা অন্যমতে তার দাসীকে হযরত সারার খিদমাতের জন্য দান করলেন। হযরত সারা হাজেরাকে ইবরাহীম আ.-এর খিদমাতের জন্য দিয়ে দিলেন। অতঃপর তিনি তাঁকে পরিণয় সূত্রে আবদ্ধ করে নিলেন। এ হাজেরার গর্ভেই এই পুত্র জন্মগ্রহণ করলেন। হযরত ইবরাহীম আ. তার নাম রাখলেন ইসমা’ঈল। অবশ্য হযরত সারার গর্ভে পরবর্তীতে হযরত ইবরাহীম আ.-এর দ্বিতীয় পুত্রসন্তান জন্মগ্রহণ করেন যার নাম রাখেন তিনি ইসহাক। এ সময় হযরত ইবরাহীম আ.-এর বয়স হয়েছিল একশ’ বিশ বছর ও সারার বয়স হয়ে ছিল নিরানব্বই বছর।

ইসমা’ঈল (আ:) এর কোরবানির ঘটনা: লালন-পালনের দীর্ঘ কষ্ট সহ্য করার পর যখন বিপদে-আপদে কাজে-কর্মে সন্তান পিতার পাশে দাঁড়াবার বয়সে পৌঁছল তখন আল্লাহর পক্ষ থেকে নির্দেশ হলো, পুত্রকে কুরবানী করার। এ ঘটনাকে কুরআনুল কারীমে আল্লাহ তাআলা এভাবে বর্ণনা করেছেন-


فَلَمَّا بَلَغَ مَعَہُ السَّعۡیَ قَالَ یٰبُنَیَّ اِنِّیۡۤ اَرٰی فِی الۡمَنَامِ اَنِّیۡۤ اَذۡبَحُکَ فَانۡظُرۡ مَاذَا تَرٰی ؕ قَالَ یٰۤاَبَتِ افۡعَلۡ مَا تُؤۡمَرُ ۫ سَتَجِدُنِیۡۤ اِنۡ شَآءَ اللّٰہُ مِنَ الصّٰبِرِیۡنَ ﴿۱۰۲﴾


“অতঃপর যখন পুত্র পিতার সঙ্গে চলা ফেরার মত বয়সে উপনীত হলো, তখন ইবরাহীম আ. বললেন, হে আমার পুত্রধন! আমি স্বপ্নে দেখেছি যে, তোমাকে যবেহ করছি। তুমি ভেবে দেখ, কী করবে? সে বললো, হে পিতা! আপনাকে যে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে, তা আপনি পালন করুন। ইনশা আল্লাহ! আপনি আমাকে সবরকারীদের মধ্যে পাবেন।


[সূরা সাফ্ফাত : আয়াত-১০২]


এ নির্দেশ ছিল হযরত ইবরাহীম আ.-এর জীবনে এক অগ্নিপরীক্ষা। আল্লাহ তাআলা ইচ্ছা করলে স্বপ্নের মাধ্যমে না বলে সরাসরি ইবরাহীম আ.-কে হুকুম দিতে পারতেন। কিন্তু তিনি তা করেন নি। কারণ এটাও একটা পরীক্ষা ছিল যে, স্বপ্নের হুকুমের মাঝে মানব মনে বিভিন্ন রকম অর্থ করার যথেষ্ট অবকাশ থাকে। এখানেও ইবরাহীম আ.-এর অন্তরের হালাত যাচাই করা উদ্দেশ্য ছিল। কিন্তু ইবরাহীম আ. কোন রকম ব্যাখ্যার সুযোগ নিলেন না। ছেলেকে পরিষ্কার ভাষায় জানিয়ে দিলেন যে, আমি তোমাকে স্বপ্নে যবেহ করতে দেখেছি। তাফসীর বিশারদগণ বলেন, সে সময় হযরত ইসমা’ঈল আ.-এর বয়স হয়েছিল ১৩ বছর। কেউ কেউ বলেন, তিনি সাবালক অর্থাৎ, পরিণত বয়সে উপনীত হয়েছিলেন ।

কোরবানির ঐতিহাসিক ঘটনা: ইসমা’ঈল আ. জবাব দিলেন—

قَالَ یٰۤاَبَتِ افۡعَلۡ مَا تُؤۡمَرُ

হে পিতা! আপনাকে যে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে, তা করে ফেলুন।’ এতে হযরত ইসমা’ঈল আ.-এর বিনয় ও আত্মনিবেদনের পরিচয় তো পাওয়াই যায়, তদপুরি প্রতীয়মান হয় যে, এমন কচি বয়সে আল্লাহ তাআলা তাকে কী পরিমাণ মেধা ও জ্ঞান দান করেছিলেন যে, তিনি হযরত ইবরাহীম আ.-এর স্বপ্নের কথা শুনেই বুঝে ফেললেন যে, নবীর স্বপ্ন সে তো ওহী। তাই তিনি স্বপ্নের জবাবে নির্দেশের কথা বললেন-


افْعَلْ مَا تُؤْمَرُ


‘আপনাকে যে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে তা করে ফেলুন।’ পিতাকে এ আশ্বাসও দিলেন-


سَتَجِدُنِیۡۤ اِنۡ شَآءَ اللّٰہُ مِنَ الصّٰبِرِیۡنَ


“ইনশাআল্লাহ! আপনি আমাকে সবরকারীদের মধ্যে পাবেন।’


এ বাক্যে তিনি “ইনশাআল্লাহ আমাকে সবরকারী পাবেন” না বলে সবরকারীদের মধ্যে পাবেন বলে এদিকে ইশারা করেছেন যে, এ সবরও সহনশীলতা একা আমারই কৃতিত্ব নয়; বরং দুনিয়তে আরও বহু সবরকারী আছেন। ইনশাআল্লাহ আমিও তাঁদের অন্তর্ভুক্ত হয়ে যাবো। এবার পিতা-পুত্র উভয়ে কুরবানীর জন্য প্রস্তুত হলেন।


ইরশাদ হচ্ছে-

فَلَمَّاۤ اَسۡلَمَا وَ تَلَّہٗ لِلۡجَبِیۡنِ

“অতঃপর তাঁরা যখন উভয়ে আনুগত্য প্রকাশ করলেন এবং ইবরাহীম আ. তাকে (ইসমাঈল) যবেহ করতে শায়িত করলেন। 

ইবরাহীম আঃ এর পরীক্ষা: এরপর কী হলো, তা এ আয়াতে উল্লেখ করা হয়নি। তাফসীরের কিতাবে উল্লেখ রয়েছে যে, অবশেষে তারা উভয়ে যখন কোরবানগাহে পৌঁছলেন, তখন হযরত ইসমা’ঈল আ. পিতাকে বললেন, পিতা! আমাকে খুব শক্ত করে বেঁধে নিন যাতে আমি বেশি ছটফট করতে না পারি। আপনার পরিধেয় বস্ত্রও শামলে নিন আমার রক্তের ছিঁটা তাতে না লাগে। এতে সওয়াব হ্রাস পেতে পারে। এ ছাড়া রক্ত দেখলে আমার মা অধিক ব্যাকুল হবেন। আর আপনার ছুরিটাও একটু ধার দিয়ে নিন এবং তা আমার গলায় দ্রুত চালান। যাতে আমার প্রাণ সহজে বের হয়ে যায়। কারণ মৃত্যু বড় কঠিন ব্যাপার! আপনি আমার মায়ের কাছে পৌঁছে আমার সালাম বলবেন। যদি আমার জামা তার কাছে নিয়ে যেতে চান, তবে নিয়ে যাবেন। এতে হয়ত তিনি সান্ত্বনা খুঁজে পাবেন। এরপর ইবরাহীম আঃ পুত্রকে চুমু খেলেন এবং অশ্রুপূর্ণ নেত্রে তাঁকে বেঁধে নিলেন। এবং কাঁৎ করে এমনভাবে শায়িত করলেন যেন কপালের একপাশ মাটি স্পর্শ করে। এরপর তিনি স্বজোরে ছুরি চালানো শুরু করলেন। কিন্ত কাটছে না! এ অবস্থা দেখে ফিরিশতাকুল দু’আ তাসবীহ ও তাহমীদ পাঠসহকারে চিৎকার করে বলতে লাগলো- হে আমাদের প্রভু! হে আমাদের মাওলা! এ বৃদ্ধ ভদ্র লোকটির প্রতি রহম কর এবং ছোট্ট বালকটির জীবন রক্ষা কর।

ইব্রাহিম আঃ সম্পর্কে কুরআনের আয়াত:


অতঃপর আল্লাহ তাদের প্রার্থনা কবুল করলেন এবং ডাক দিয়ে বললেন-


وَ نَادَیۡنٰہُ اَنۡ یّٰۤاِبۡرٰہِیۡمُ ﴿۱۰۴﴾ۙقَدۡ صَدَّقۡتَ الرُّءۡیَا ۚ اِنَّا کَذٰلِکَ نَجۡزِی الۡمُحۡسِنِیۡنَ ﴿۱۰۵﴾

‘আমি তাঁকে ডেকে বললাম, হে ইবরাহীম! তুমি তো স্বপ্নকে সত্যে পরিণত করে দেখালে। আমি এভাবেই পুণ্যবানদেরকে প্রতিদান দিয়ে থাকি। নিশ্চয় এটা একটা সুস্পষ্ট পরীক্ষা। আমি তার পরিবর্তে যবেহ করার জন্য দিলাম এক মহান জন্তু।


হযরত জিবরাঈল আ. এক বেহেশতী দুম্বা নিয়ে উপস্থিত হলে । অবশেষে তাই কুরবানী করলেন হযরত ইবরাহীম আ.। এ থেকে এলো আমাদের এ কুরবানী। কুরবানীর মূলকথাটা হলো, বান্দার জান-মাল, ইবাদত-বন্দেগী, জীবন-মরণ সবকিছুই আল্লাহর হুকুমের সামনে সমর্পণ করা । ইরশাদ হচ্ছে-


قُلۡ اِنَّ صَلَاتِیۡ وَ نُسُکِیۡ وَ مَحۡیَایَ وَ مَمَاتِیۡ لِلّٰہِ رَبِّ الۡعٰلَمِیۡنَ ﴿۱۶۲﴾ۙ

” আমার নামায, আমার কুরবানী, আমার জীবন, আমার মরণ, সবই রাব্বুল আলামীনের জন্য নিবেদিত । ”


মোটকথা, আল্লাহ তাআলা হযরত ইবরাহীম আ.-এর সুমহান ত্যাগের আদর্শকে পৃথিবীতে সুপ্রতিষ্ঠিত করার জন্যই সামর্থ্যবান মু’মিন মুসলমানের ওপর কুরবানী ওয়াজিব (অবশ্য পালনীয়) করেছেন। এ মহান কুরবানী আমাদের সামনে সমাগত। আমরা এখন থেকে প্রস্তুতি গ্রহণ করবো এবং দুআ করবো যেন আমরা ইবরাহিমী আদর্শে উজ্জীবিত হয়ে কুরবানী করতে পারি।

ইব্রাহিম আঃ সম্পর্কে কুরআনের আয়াত


অতঃপর আল্লাহ তাদের প্রার্থনা কবুল করলেন এবং ডাক দিয়ে বললেন-


وَ نَادَیۡنٰہُ اَنۡ یّٰۤاِبۡرٰہِیۡمُ ﴿۱۰۴﴾ۙقَدۡ صَدَّقۡتَ الرُّءۡیَا ۚ اِنَّا کَذٰلِکَ نَجۡزِی الۡمُحۡسِنِیۡنَ ﴿۱۰۵﴾

‘আমি তাঁকে ডেকে বললাম, হে ইবরাহীম! তুমি তো স্বপ্নকে সত্যে পরিণত করে দেখালে। আমি এভাবেই পুণ্যবানদেরকে প্রতিদান দিয়ে থাকি। নিশ্চয় এটা একটা সুস্পষ্ট পরীক্ষা। আমি তার পরিবর্তে যবেহ করার জন্য দিলাম এক মহান জন্তু।


হযরত জিবরাঈল আ. এক বেহেশতী দুম্বা নিয়ে উপস্থিত হলে । অবশেষে তাই কুরবানী করলেন হযরত ইবরাহীম আ.। এ থেকে এলো আমাদের এ কুরবানী। কুরবানীর মূলকথাটা হলো, বান্দার জান-মাল, ইবাদত-বন্দেগী, জীবন-মরণ সবকিছুই আল্লাহর হুকুমের সামনে সমর্পণ করা । ইরশাদ হচ্ছে-


قُلۡ اِنَّ صَلَاتِیۡ وَ نُسُکِیۡ وَ مَحۡیَایَ وَ مَمَاتِیۡ لِلّٰہِ رَبِّ الۡعٰلَمِیۡنَ ﴿۱۶۲﴾ۙ

” আমার নামায, আমার কুরবানী, আমার জীবন, আমার মরণ, সবই রাব্বুল আলামীনের জন্য নিবেদিত । ”


মোটকথা, আল্লাহ তাআলা হযরত ইবরাহীম আ.-এর সুমহান ত্যাগের আদর্শকে পৃথিবীতে সুপ্রতিষ্ঠিত করার জন্যই সামর্থ্যবান মু’মিন মুসলমানের ওপর কুরবানী ওয়াজিব (অবশ্য পালনীয়) করেছেন। এ মহান কুরবানী আমাদের সামনে সমাগত। আমরা এখন থেকে প্রস্তুতি গ্রহণ করবো এবং দুআ করবো যেন আমরা ইবরাহিমী আদর্শে উজ্জীবিত হয়ে কুরবানী করতে পারি।





















Tag:-কোরবানি অর্থ কি | ইব্রাহিম আঃ এর কোরবানির ইতিহাস


Contact Form

Send