সিগারেট ছাড়ার উপায় | The way to quit smoking


সিগারেটের নেশা থেকে বের হবার উপায়

সিগারেট ছাড়ার উপায়

ভাবুন আপনার কাছে একটা গাছ রয়েছে যেটায় টাকা ফলে।এবার আমি এসে আপনাকে বললাম ভাই আপনি এই গাছটা কেঠে ফেলুন।আপনি সবার আগে আমাকে কি জিজ্ঞাস করবেন?কেন ভাই কেন কেঠে ফেলবো।
এটাই হলো বেপারটা।
সিগারেট হলো আপনার কাছে একটা গাছের মত।
যেটা আপনার কাছে আরামদায়ক উৎস হিসাবে কাজ করে।যদি আপনি এটাকে কেঠে ফেলতে চান তাহলে সবার আগে দরকার একটি শক্তিশালী কারন।
কেন কাঠবো এই কেন থেকে শুরু করতে হবে।আর এই কেনটা সম্পূর্ন আপনার উপর নির্ভর করছে।আপনার জন্য  জিবনে সব থেকে বেশি কোন জিনিষ মূল্যবান।
টাকা,পরিবার,নাকি শাস্ত।
এখানে প্রতিটি জিনিষের মূল্য আলাদা আলাদা।সিগারেট ছারার জন্য আমার কাছে সব চেয়ে বড় যে কারনটা সেটার হয়তো আপনার কাছে মূল্য নেই তাই কেন এই কারনটা আপনার থেকে বের করতে হবে।
আর যতক্ষন না এই কেনটা শক্তিশালী হয়ে উঠছে ততক্ষন আমি সাজেষ্ট করবো সিগারেট ছারার চেষ্টা না করাই ভালো।কারন এই রকম চেষ্টা বৃথা যাবে।যার কারনে আপনার নিজের উপর কনফিডেন্স কমে যাবে।

তাই এখন সিগারেট ছাড়ার কয়েকটা আইডি বলবো।


Smart Idia No 1.why

এবার আমি যেটা বলছি সেটা মনোযোগ দিয়ে পড়ুন।
ভুলেও মনে মনে একটা গোলাপি আপেলের কথা ভাববেন না।খবরদার গোলাপি একটি আপেলের কথা ভেবেছেন তো।কি হচ্ছে আমি যতই না করি কিন্তু এই মূহুর্তে আপনার মনে গোলাপি আপেলের ছবি ভেসে উঠছে।এটাই তো হয় আপনি যতই ভাববেন আমি সিগারেট খাবো না।ততই আপনার আরো বেশি ইচ্ছা হবে সিগারেট খাওয়ার।
আপনি যখনি মনে করেন সিগারেট খাবেন না,তখনি আপনার মনের মধ্যে সিগারেট খাওয়ার নেশা চলে আসে।
যেটা সিগারেট এর সাথে যে ইমোশন গুলো জরিয়ে রয়েছে সে গুলো বের করে দেয়।আর আপনি সিগারেট খাওয়া শুরু করেন।তো এর সমাধান কি?
সমাধানটা খুবই সিম্পিল আপনি সিগারেট এর জায়গায় অন্যকিছু বলতে হবে।একটা নতুন নাম দিয়ে সিগারেট এর নামটাকে রিপ্লেস করতে হবে।কি নামে রিপ্লেস করবেন সেতা আপনি ঠিক করুন।

Smart Idia No2.Use a Different Name

কিছু ছেলে মেয়ে থাকে যারা তাদের ফেবারিট হিরো অথাবা Heroin কে দেখে শুধুমাত্র স্টাইল মারার জন্য সিগারেট খেতে শুরু করে।আর তারপর বাঝে ভাবে ফেসে যায়।অরা মনে করে হয়তো সিগারেট খেলে আমায় বিশাল স্মার্ট লাগবে।আমি আমার ফ্রেন্ড সার্কেলে ও এই বিষয়টা দেখেছি।কিছু ছেলে এমন আছে যারা মনে করে সিগারেট  খেলে হয়তো মেয়েরা আরো বেশি স্মার্ট মনে করবে।এটার মানে কি মেয়েদের কি আপনার এতটাই বোকা মনে হয়।অরা কি বুঝে না যে ছেলেটা স্টাইল মারার জন্য ক্রমাগত নিজেরই ক্ষতি করে চলেছে,সেই ছেলেটা কাল নিজের মজার জন্য অন্য কারো ক্ষতি করবে না তার কি গ্যারান্টি আছে।সে নিজের উপর থেকে নিজের কন্টোল সম্পূর্ণ ভাবে হারিয়ে ফেলেছে।এখন শুধু অনুভূতি পিচনে চুটে বেরাচ্ছে।আজকে ভালো অনুভূতি পাচ্ছে আমার সাথে আছে।কালকে অনুভূতি খারাপ হতে শুরু করবে বা অন্য কোন জায়গা থেকে বেশি ভালো অনুভূতি আসতে করলে তখন আমায় ছেরে অদিকে দৌড়াতে শুরু করবে।তো এই রকম ছেলের সাথে কোন মেয়ে সম্পর্ক করতে চাইবে।
আর সিগারেট খেলে ঠোঁটে দাগ স্পট পরতে শুরু করে।মেয়েটা যদি কিস ও করে তবে মনে হয় মেয়েটা কোন সিগারেট এর এসিটের সাথে কিস করছে।তো আমি জানি না সিগারেট খাওয়া কোন দিক দিয়ে স্মার্ট হয়।

Smart Idia No3.Don,t Be a stupid

একটা জায়গায় কিছু লোককে বলা হয়, তাদের সিগারেট খেতে হবে তবে খুব মনোযোগ দিয়ে।মনোযোগ এই দিকে নয় যে তারা কি রকম অনুভব করছে।বরং মনোযোগ এই দিকে দিতে হবে যে তারা যে সিগারেটা খাচ্ছে তাদের এই স্বাদটা কেমন লাগছে।মানে তাদের খুব মনোযোগ দিয়ে তাদের স্বাদটাকে সনাক্ত করতে হবে অনুভূতিটাকে নয়। তাদের মধ্যে ৯০% রিপোর্ট করলো, মনে হয় যেনো পায়খানা খাচ্ছে।আমি কোনদিন সিগারেট খাইনি ত আমি এই বেপারে জানি না।তো আপনি যদি রকম রেগুলার সিগারেট খান তো কেমন লাগে অবশ্যই কমেন্ট করে জানাবেন।

Smart Idia No4.mindfu smoking

এবার ধরুন আপনি ১০ টা বুকডন দেওয়ার ক্ষমতা রাখেন।কিন্তু আমি এসে বললাম না আপনাকে আজ ১০০ টা বুকডন দিতে হবে।আপনি কি দিতে পারবেন।যদি দিয়েও থাকেন।পরের দিন বিছানা ছেরে আর উঠতে পারবেন না।তো সাভাবিক ব্যাপার পরের দিন থেকে আপনি বুকডন দেওয়াই বন্ধ করে দিবেন।যেমন আমাদের শরিরের একটা পর্যাপ্ত ক্ষমতা রয়েছে।তেমনি আমাদের মস্তিষ্কের একটা পর্যাপ্ত ক্ষমতা রয়েছে।তো আজ যদি আপনি দিনে ১০ টা করে সিগারেট খান তো কাল থেকে একদম ১০ থেকে ০ তে নেমে আসাটা সত্যি খুব কষ্টকর।
যেটার জন্য প্রচুর ইচ্ছা শক্তির দরকার।যেটা আমাদের বেশিরভাগ লোকের কাছে থাকে না।তো বেটার অপশন কি আসতে আসতে ছারুন।  প্রতিদিন যদি আপনি ১০ করে খান তাহলে সেখানে আপনাকে পরবর্তী এক সাপ্তাহ পর্যন্ত ৫ টা করে খান মানে ৫০%।তারপর পর পরের সাপ্তাহ ৫ টার ৫০% খান মানে ধরে নিন ৩ টা। এই রকম প্রতি সাপ্তাহে আপনাকে আসতে আসতে কমাতে হবে।
এই রকম করলে আপনি মাত্র ৬ সাপ্তাহে এই নেশার কবল থেকে বেরিয়ে আসবেন।তাও খুব কম ইচ্ছাশক্তি ব্যবহার করে।

Smart Idia No 5

বেশভাগ মানু্ষ ২ টি কারনে সিগারেট খান।হয়তো আরামদায়ক একটা অনুভূতি পাওয়ার জন্য।অথবা কোন খারাপ অনুভূতির হাত থেকে রেহাই পাওয়ার জন্য।
তো আমি এটা আপনাকে জিজ্ঞাস করতে চাই? এই দুটি কাজ কি শুধু সিগারেট খেয়েই করা যেতে পারে।কেন আর কি কোন অন্য রাস্তা নেই।আর হে প্রচুর রাস্তা আছে।এটা ছাড়া আর যেটা করতে ভালো লাগে সেটা করুন।
আপনি চাইলে রেগুলার জগিং করতে পারেন বডি বিল্ডিং করতে পারেন বা গেইম খেলতে পারেন।সিগারেট এর পরিবর্তে এই গুলা করতে পারেন।এবার এটা সম্পূর্ন আপনার ব্যাপার আপনার এখান থেকে কোন কাজটা পচন্দের।কোন কাজটি করলে আপনি ভালো অনুভূতি পাবেন।শুধুমাত্র সেই কাজটাই আপনার এই ক্ষতিকর দিকটার হাত থেকে বাচাতে সাহায্য করতে পারে।
সিগারেট খেলে আপনি ক্রমাগত কেন্সার এর দিকে এগিয়ে যাবেন। যা হয়তো এখন বুঝবেন না বয়সের চাপ যখম বারবে তখন এই সমস্যাটা বুঝতে পারবেন।
আর তখন এই সিগারেট ছারলে ও আপনার কেন্সার কমবে না।তাই এখন থেকে এই অব্যাস ত্যাগ করুন
আর সুস্থ জীবনযাপন করুন।

তো বন্ধুরা এই ছিলো আজকের বিষয় সবাই ভালো থাকুন
সুস্থ থাকুন আর সাথেই থাকুন Blognet24.com এর।

Post a Comment

0 Comments